যে ব্যক্তি জুমু’আর দিন সূরা_কাহফ পাঠ

রাসূলুল্লাহ
সল্লাল্লাহুআলাই
হি ওয়াসাল্লাম
বলেছেনঃ

যে ব্যক্তি জুমু’আর
দিন # সূরা_কাহফ পাঠ করবে,
সে ৮ দিন পর্যন্ত সমস্ত
ফিতনা-ফাসাদ
থেকে নিরাপত্তা লাভ
করবে ।
এমনকি যদি এই সময়ের
মধ্যে দাজ্জাল ও এসে পড়ে,
তবে তার
ফিতনা থেকে তাকে
রক্ষা করা হবে”

[ ইবনু
কাসীর ]
[ সুরা কাহাফ ১৫ নং পারার
২য় সুরা।কেউ
যদি না পারেন বা না শিখে
থাকেন
তাইলে এখনি শিখে নিন ]
→ পোস্ট টি শেয়ার করুন

সুরা আল কালাম ১০ -১১

সে ব্যক্তির অনুসরণ করো না, যে
কথায় কথায় শপথ করে, যে লাঞ্ছিত,
যে অসাক্ষাতে নিন্দা করে, যে
একজনের কথা অন্যজনের কাছে
লাগায়।”

[সুরা আল কালাম ১০ -১১]

সূরা বাকারা, আয়াত ১১-২০

সূরা বাকারা
আয়াতঃ১১২০
﴿ﻭَﺇِﺫَﺍ ﻗِﻴﻞَ ﻟَﻬُﻢْ ﻟَﺎ ﺗُﻔْﺴِﺪُﻭﺍ ﻓِﻲ ﺍﻟْﺄَﺭْﺽِ ﻗَﺎﻟُﻮﺍ
ﺇِﻧَّﻤَﺎ ﻧَﺤْﻦُ ﻣُﺼْﻠِﺤُﻮﻥَ﴾
.
১১) যখনই তাদের বলা হয়েছে ,
যমীনে ফাসাদ সৃষ্টি করো
না, তারা একথাই বলেছে ,
আমরা তো সংশোধনকারী ৷
.
﴿ﺃَﻟَﺎ ﺇِﻧَّﻬُﻢْ ﻫُﻢُ ﺍﻟْﻤُﻔْﺴِﺪُﻭﻥَ ﻭَﻟَٰﻜِﻦ ﻟَّﺎ ﻳَﺸْﻌُﺮُﻭﻥَ﴾
.
১২) সাবধান ! এরাই ফাসাদ
সৃষ্টিকারী, তবে তারা এ
ব্যাপারে সচেতন নয় ৷
.

﴿ﻭَﺇِﺫَﺍ ﻗِﻴﻞَ ﻟَﻬُﻢْ ﺁﻣِﻨُﻮﺍ ﻛَﻤَﺎ ﺁﻣَﻦَ ﺍﻟﻨَّﺎﺱُ ﻗَﺎﻟُﻮﺍ
ﺃَﻧُﺆْﻣِﻦُ ﻛَﻤَﺎ ﺁﻣَﻦَ ﺍﻟﺴُّﻔَﻬَﺎﺀُ ۗ ﺃَﻟَﺎ ﺇِﻧَّﻬُﻢْ ﻫُﻢُ ﺍﻟﺴُّﻔَﻬَﺎﺀُ
ﻭَﻟَٰﻜِﻦ ﻟَّﺎ ﻳَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ﴾
.
১৩) আর যখন তাদের বলা
হয়েছে , অন্য লোকেরা
যেভাবে ঈমান এনেছে
তোমরাও সেভাবে ঈমান
আনো তখন তারা এ জবাবই
দিয়েছে- আমরা কি ঈমান
আনবো নির্বোধদের মতো?
সাবধান !আসলে এরাই
নির্বোধ, কিন্তু এরা জানে
না ৷
.
﴿ﻭَﺇِﺫَﺍ ﻟَﻘُﻮﺍ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺁﻣَﻨُﻮﺍ ﻗَﺎﻟُﻮﺍ ﺁﻣَﻨَّﺎ ﻭَﺇِﺫَﺍ ﺧَﻠَﻮْﺍ
ﺇِﻟَﻰٰ ﺷَﻴَﺎﻃِﻴﻨِﻬِﻢْ ﻗَﺎﻟُﻮﺍ ﺇِﻧَّﺎ ﻣَﻌَﻜُﻢْ ﺇِﻧَّﻤَﺎ ﻧَﺤْﻦُ
ﻣُﺴْﺘَﻬْﺰِﺋُﻮﻥَ﴾
.
১৪) যখন এরা মু’মিনদের সাথে
মিলিত হয়, বলেঃ “আমরা
ঈমান এনেছি,” আবার যখন
নিরিবিলিতে নিজেদের
শয়তানদের  সাথে মিলিত
হয় তখন বলেঃ “আমরা তো
আসলে তোমাদের সাথেই
আছি আর ওদের সাথে তো
নিছক তামাশা করছি ৷”
.
﴿ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻳَﺴْﺘَﻬْﺰِﺉُ ﺑِﻬِﻢْ ﻭَﻳَﻤُﺪُّﻫُﻢْ ﻓِﻲ ﻃُﻐْﻴَﺎﻧِﻬِﻢْ
ﻳَﻌْﻤَﻬُﻮﻥَ﴾
.
১৫) আল্লাহ এদের সাথে
তামাশা করছেন, এদের রশি
দীর্ঘায়িত বা ঢিল দিয়ে
যাচ্ছেন এবং এরা নিজেদের
আল্লাহদ্রোহিতার মধ্যে
অন্ধের মতো পথ হাতড়ে মরছে ৷
.
﴿ﺃُﻭﻟَٰﺌِﻚَ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﺍﺷْﺘَﺮَﻭُﺍ ﺍﻟﻀَّﻠَﺎﻟَﺔَ ﺑِﺎﻟْﻬُﺪَﻯٰ ﻓَﻤَﺎ
ﺭَﺑِﺤَﺖ ﺗِّﺠَﺎﺭَﺗُﻬُﻢْ ﻭَﻣَﺎ ﻛَﺎﻧُﻮﺍ ﻣُﻬْﺘَﺪِﻳﻦَ﴾
.
১৬) এরাই হিদায়াতের
বিনিময়ে গোমরাহী কিনে
নিয়েছে, কিন্তু এ সওদাটি
তাদের জন্য লাভজনক নয় এবং
এরা মোটেই সঠিক পথে
অবস্থান করছে না৷

.
﴿ﻣَﺜَﻠُﻬُﻢْ ﻛَﻤَﺜَﻞِ ﺍﻟَّﺬِﻱ ﺍﺳْﺘَﻮْﻗَﺪَ ﻧَﺎﺭًﺍ ﻓَﻠَﻤَّﺎ ﺃَﺿَﺎﺀَﺕْ
ﻣَﺎ ﺣَﻮْﻟَﻪُ ﺫَﻫَﺐَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﺑِﻨُﻮﺭِﻫِﻢْ ﻭَﺗَﺮَﻛَﻬُﻢْ ﻓِﻲ
ﻇُﻠُﻤَﺎﺕٍ ﻟَّﺎ ﻳُﺒْﺼِﺮُﻭﻥَ﴾
.
১৭) এদের দৃষ্টান্ত হচ্ছে, যেমন
এক ব্যক্তি আগুন জ্বালালো
এবং যখনই সেই আগুন চারপাশ
আলোকিত করলো তখন আল্লাহ
তাদের দৃষ্টিশক্তি ছিনিয়ে
নিলেন এবং তাদের ছেড়ে
দিলেন এমন অবস্থায় যখন
অন্ধকারের মধ্যে তারা কিছুই
দেখতে পাচ্ছিল না৷

.
﴿ﺻُﻢٌّ ﺑُﻜْﻢٌ ﻋُﻤْﻲٌ ﻓَﻬُﻢْ ﻟَﺎ ﻳَﺮْﺟِﻌُﻮﻥَ﴾
.
১৮) তারা কালা, বোবা, অন্ধ৷
তারা আর ফিরে আসবে
না ৷
.
﴿ﺃَﻭْ ﻛَﺼَﻴِّﺐٍ ﻣِّﻦَ ﺍﻟﺴَّﻤَﺎﺀِ ﻓِﻴﻪِ ﻇُﻠُﻤَﺎﺕٌ ﻭَﺭَﻋْﺪٌ
ﻭَﺑَﺮْﻕٌ ﻳَﺠْﻌَﻠُﻮﻥَ ﺃَﺻَﺎﺑِﻌَﻬُﻢْ ﻓِﻲ ﺁﺫَﺍﻧِﻬِﻢ ﻣِّﻦَ
ﺍﻟﺼَّﻮَﺍﻋِﻖِ ﺣَﺬَﺭَ ﺍﻟْﻤَﻮْﺕِ ۚ ﻭَﺍﻟﻠَّﻪُ ﻣُﺤِﻴﻂٌ
ﺑِﺎﻟْﻜَﺎﻓِﺮِﻳﻦَ﴾
.
১৯) অথবা এদের দৃষ্টান্ত এমন
যে, আকাশ থেকে মুষলধারে
বৃষ্টি পড়ছে ৷ তার সাথে আছে
অন্ধকার মেঘমালা , বজ্রের
গর্জন ও বিদ্যুৎ চমক ৷ বজ্রপাতের
আওয়াজ শুনে নিজেদের
প্রাণের ভয়ে এরা কানে
আঙুল ঢুকিয়ে দেয় ৷ আল্লাহ এ
সত্য অস্বীকারকারীদেরকে
সবদিক দিয়ে ঘিরে
রেখেছেন ৷
.
﴿ﻳَﻜَﺎﺩُ ﺍﻟْﺒَﺮْﻕُ ﻳَﺨْﻄَﻒُ ﺃَﺑْﺼَﺎﺭَﻫُﻢْ ۖ ﻛُﻠَّﻤَﺎ ﺃَﺿَﺎﺀَ
ﻟَﻬُﻢ ﻣَّﺸَﻮْﺍ ﻓِﻴﻪِ ﻭَﺇِﺫَﺍ ﺃَﻇْﻠَﻢَ ﻋَﻠَﻴْﻬِﻢْ ﻗَﺎﻣُﻮﺍ ۚ ﻭَﻟَﻮْ
ﺷَﺎﺀَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻟَﺬَﻫَﺐَ ﺑِﺴَﻤْﻌِﻬِﻢْ ﻭَﺃَﺑْﺼَﺎﺭِﻫِﻢْ ۚ ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻠَّﻪَ
ﻋَﻠَﻰٰ ﻛُﻞِّ ﺷَﻲْﺀٍ ﻗَﺪِﻳﺮٌ﴾
.
২০) বিদ্যুৎ চমকে তাদের অবস্থা
এই দাঁড়িয়েছে যেন বিদ্যুৎ
শীগগির তাদের দৃষ্টিশক্তি
ছিনিয়ে নেবে ৷ যখন সামান্য
একটু আলো তারা অনুভব করে
তখন তার মধ্যে তারা কিছুদূর
চলে এবং যখন তাদের ওপর
অন্ধকার ছেয়ে যায় তারা
দাঁড়িয়ে পড়ে ৷ আল্লাহ
চাইলে তাদের শ্রবণশক্তি ও
দৃষ্টিশক্তি একেবারেই
কেড়ে নিতে পারতেন ৷
নিঃসন্দেহে তিনি সবকিছুর
ওপর শক্তিশালী ৷
﴿ﻳَﺎ ﺃَﻳُّﻬَﺎ ﺍﻟﻨَّﺎ

কোরআন’র ব্যাখ্যা

যারা নামায আদায় করছেন না
তাদের উদ্দেশ্যে বলছি,
.
ভাই সময় থাকতেই সাবধান হওন। এক্ষণ
থেকেই তওবা করে নিয়মিত নামায
আদায় করুন। না হলে আপনার কপালে
বড় দুঃখ অপেক্ষা করছে।
.
হাশরের
ময়দানে আল্লাহ পাক সবার সামনে

Continue reading “কোরআন’র ব্যাখ্যা”

আল কোরআন

সুরা আল ফাতিহা
ভূমিকা

image

﴿ﺍﻟْﺤَﻤْﺪُ ﻟِﻠَّﻪِ ﺭَﺏِّ ﺍﻟْﻌَﺎﻟَﻤِﻴﻦَ﴾
১) প্রশংসা  একমাত্র আল্লাহর
জন্য যিনি নিখল বিশ্ব –
জাহানের রব,

Continue reading “আল কোরআন”

কোরআন’র বানী

বাকারা।

শয়তান তোমাদেরকে অভাব-
অনটনের ভীতি প্রদর্শন করে এবং
অশ্লীলতার আদেশ দেয়।

Continue reading “কোরআন’র বানী”