যাকাত (পর্ব-২)

যাকাত (পর্ব-২)
যাকাত সম্পর্কে জানা জরুরী এমন
গুরুত্বপূর্ণ কতগুলো বিষয়
সংক্ষিপ্তভাবে বর্ণনা করা হলো।
(১) নিসাব পরিমান স্বর্ণ, রূপা, ক্যাশ
টাকা পূর্ণ এক বছর না হওয়া পর্যন্ত
যাকাত দেওয়া ফরয হবেনা।

image

যেইদিন
বছর পূর্ণ হবে সেইদিন যাকাত দেওয়া
ফরয হবে। রমযান মাসে যাকাত
দিতে হবে এমন কোন কথা নেই, যার
উপর যেইদিন যাকাত ফরয হবে তখনই
যাকাত দিতে হবে।
উল্লেখ্য, বছর
গণনা করতে হবে চাঁদের হিসাব
অনুযায়ী, সৌর বৎসর নয়।
(২) একই সম্পদ যদি জমানো থাকে,
তাহলে তার উপরে প্রতি বছরই
যাকাত দিতে হবে। অর্থাৎ, কোন
সম্পদের উপরে এক বছর যাকাত দিলে
পরের বছরেও যদি সেই সম্পদ জমা
থাকে, আর তার পরিমান নিসাবের
সমান বা বেশি হয়, তাহলে পরের
বছরেও ঐ একই সম্পদের উপর যাকাত
দেওয়া ফরয হবে।
(৩) যাকাত পুরো সম্পদের উপরেই
দিতে হয়। অনেকে মনে করে নিসাব
পরিমানের উপরে যেটা হয় শুধুমাত্র
সেই পরিমানের উপরে যাকাত
দিতে হয় এটা ঠিক নয়।
(৪) স্বর্ণ, রূপা বা নগদ টাকার যাকাত
আদায় করতে হবে স্বর্ণ, রূপা বা নগদ
টাকা দিয়ে। টাকা দিয়ে
গরীবদেরকে ‘যাকাতের কাপড়’ বা
অন্য কিছু কিনে বিরতণ করলে যাকাত
আদায় হবেন। যাকাতে কাপড় দেওয়া
এক প্রকার নিকৃষ্ট বিদআ’ত।
(৫) স্বর্ণ, রূপা ও নগদ টাকার নিসাব
আলাদা আলাদা হিসাব করা হবে,
একসাথে করে যাকাত দিতে
হবেনা। অর্থাৎ, কারো কাছে ৬ ভরি
স্বর্ণ আর ৪৮ তোলা রুপা আছে,
তাহলে তাকে দুইটার মূল্য যোগ করে
একসাথে নিসাব হিসাব করে
যাকাত দিতে হবেনা। কারণ, দুইটার
নিসাব আলাদা, তাদের হিসাবও
আলাদা হবে।

image

image

(৬) মেয়ে বা মা বোনদের যদি
মালিক করে গয়না উপহার দেওয়া হয়,
তাহলে তাদের প্রত্যেকের হিসাব
আলাদা হবে। যেমন ধরুন, তিন বোনের
মিলে ৭.৫ ভরি বা তার বেশি ১০/১৫
ভরি স্বর্ণ হয়, কিন্তু এককভাবে
কারোরই যদি ৭.৫ ভরি স্বর্ণ না হয়,
তাহলে কাউকেই যাকাত দিতে
হবেনা। তবে, কেউ যদি নিজের
মেয়েদের স্থায়ী মালিক না করে
গয়নাগুলো শুধু ব্যবহার করতে দেয়,
তাহলে সবগুলো মিলিয়ে ৭.৫ ভরি
বা তার বেশি হলে তার সম্পূর্ণটার
উপরে তাকে যাকাত দিতে হবে।
(৭) স্ত্রীর গয়নার মালিক যদি সে হয়,
তাহলে যাকাত ফরয হবে স্ত্রীর
উপরে। স্ত্রীর গয়নার উপরে স্বামী
যাকাত দিতে বাধ্য নন। তবে স্ত্রীর
যদি উপার্জন না থাকে তাহলে
স্বামী যদি খুশি হয়ে নিজ স্ত্রীর
যাকাত দিয়ে দিলে, তাহলে তা
ভালো।
(৮) যার গয়নার উপরে যাকাত আসে
কিন্তু হাতে নগদ টাকা নেই, তাহলে
কিছু গয়না বিক্রি করেও হলে
যাকাত আদায় করতে হবে।
(৯) তিন-চার বছর যদি অবহেলা করে
কেউ যাকাত না দেয়, এটা মারাত্মক
অপরাধ ও কবীরা গুনাহ। অতি দ্রুত
আল্লাহর কাছে খালেস তোওবা
করে অতীতের যাকাতের টাকা
হিসাব করে যাকাত আদায় করতে
হবে। অবশ্য অতীতে কাফের থাকলে
তখনকার যাকাত দিতে হবেনা।
যাকাত শুধুমাত্র ঈমানদারদের উপরে
ফরয। কাফেরদের উপর প্রথম ঈমান আনা
ফরয, ঈমান আনার পরে অন্যান্য বিধি-
বিধান আরোপ হবে।
(১০) ঋণগ্রস্থ ব্যক্তির যদি নিসাব
পরিমান সম্পদ থাকে তাহলে তার
উপর যাকাত ফরয হবে। তবে তার উচিত
হচ্ছে আগে ঋণ পরিশোধ করা, এর পরে
নিসাব পরিমান সম্পদ অবশিষ্ট
থাকলে এবং বছর অতিবাহিত হলে
তার উপর যাকাত আদায় করা। কিন্তু
কেউ যদি ঋণ পরিশোধ না করে ও
নিসাব পরিমান সম্পদ তার কাছে
জমা থাকে, তাহলে তাকে যাকাত
আদায় করতে হবে।
(১১) নিকটাত্মীয় যাদের জন্য ব্যয় করা
কারো জন্য ফরয (যেমন স্ত্রী, ছেলে
মেয়ে, বাবা-মা), বা কেউ মারা
গেলে যারা তার উত্তরাধিকার
হবে তাদেরকে যাকাত দেওয়া
যায়না। তবে এমন আত্মীয় যাদের জন্য
ব্যয় করা ফরয নয় এবং যারা তার
উত্তরাধিকারও হবেনা, এমন
আত্মীয়রা যদি যাকাত গ্রহণের
উপযুক্ত হয়, তাহলে তাদেরকে যাকাত
দেওয়া যাবে।
(১২) মুজাহিদদের যাকাত প্রদান করা
যায়। ইসলামী জ্ঞান শিক্ষা করা এক
প্রকার জিহাদ। তাই দ্বীন শিক্ষায়
নিয়োজিত ছাত্রদেরকে যাকাত
দেওয়া যায়।
(১৩) মসজিদ নির্মান বা
রক্ষণাবেক্ষণের জন্যত যাকাত
দেওয়া যায় না। মসজিদ চালাতে
হবে নফল সাদাকাহ দিয়ে।
(১৪) নিজে ব্যবহার করার জন্য ব্যবহৃত
গাড়ি ও বাড়িতে যাকাত দিতে
হয়না। বাড়ি, গাড়ি ভাড়া দিয়ে
রাখলেও তার উপরে যাকাত দিতে
হয়না। প্রাপ্ত ভাড়া জমা থাকলে
বছর শেষে তার উপরে যাকাত দিতে
হবে।
____________________________________
স্বর্ণের যাকাত কিভাবে হিসাব
করতে হবে?
নীচের এই হিসাব, গত বছরের মূল্য
অনুযায়ী। আপনারা এই বছরে স্বর্ণের
মূল্য জেনে নিয়ে নীচে বর্ণিত
নিয়ম অনুযায়ী হিসাবে করে
নিবেন।
কারো কাছে যদি ৭.৫ ভরি বা তার
থেকে বেশি পরিমান স্বর্ণ অথবা
৫২.৫ ভরি বা তার থেকে বেশি
পরিমান রূপা পূর্ণ এক চন্দ্র বছর জমা
থাকে, তাহলে তাকে সেটার মোট
মূল্যের ৪০ ভাগের এক ভাগ বা শতকরা
২.৫ টাকা (প্রতি ১০০ টাকায় ২.৫
টাকা) হারে যাকাত দিতে হবে।
উদাহরণঃ যেমন ধরুন, কারো কাছে ১০
ভরি স্বর্ণ আছে। এটা নিসাবের
পরিমানের থেকে বেশি, তাই
তাকে যেইভাবে হিসাব করতে
হবেঃ
১০ X প্রতি ভরি স্বর্ণের বর্তমান
বাজার মূল্য X ০.০২৫ = যেই টাকা
আসবে, সেই পরিমান টাকা তাকে
যাকাতের খাতগুলোতে ব্যয় করতে
হবে।
অনুরূপভাবে রূপার বা ক্যাশ টাকার
যাকাত হিসাব করতে হবেঃ মোট
মূল্য X ০.০২৫ =…টাকা।
এবছর (৩১শে মে, ২০১৬ তারিখ
অনুযায়ী) ২১ ক্যারেট স্বর্ণের প্রতি
ভরি মূল্য হচ্ছে ৪৩,৮৫৬ টাকা।
সে হিসেবে,
(১) ২০% মূল্য বাদ দিয়ে আপনার হাতে
যে স্বর্ণ আছে তার বিক্রয় মূল্য = ৪৩৮৫৬
X ০.৮০ = ৩৫,০৮৫ টাকা।
(২) ২.৫% হারে এক ভরি স্বর্ণের
যাকাত আসবে = ৩৫,০৮৫ X ০.০২৫ = ৮৭৮
টাকা (প্রায়)।
যার কাছে সাড়ে সাত ভরির বেশী
আছে, তিনি ৮৭৮ এর সাথে মোট যত
ভরি সেটা গুণ করলেই কত টাকা
যাকাত দিতে হবে সেটা পেয়ে
যাবেন।
কয়েকটি মাসআ’লাঃ
(১) নিসাব পরিমান স্বর্ণ, রূপা, ক্যাশ
টাকা পূর্ণ এক বছর না হওয়া পর্যন্ত
যাকাত দেওয়া ফরয হবেনা। যেইদিন
বছর পূর্ণ হবে সেইদিন যাকাত দেওয়া
ফরয হবে। রমযান মাসে যাকাত
দিতে হবে এমন কোন কথা নেই, যার
উপর যেইদিন যাকাত ফরয হবে তখনই
যাকাত দিতে হবে। উল্লেখ্য, বছর
গণনা করতে হবে চাঁদের হিসাব
অনুযায়ী, সৌর বৎসর নয়।
(২) যাকাত পুরো সম্পদের উপরেই
দিতে হয়। অনেকে মনে করে নিসাব
পরিমানের উপরে যেটা হয়, শুধুমাত্র
সেই পরিমানের উপরে যাকাত
দিতে হয় এটা ঠিকনা।
(৩) স্বর্ণ, রূপা ও নগদ টাকার নিসাব
আলাদা আলাদা হিসাব করা হবে,
একসাথে করে যাকাত দিতে
হবেনা। অর্থাৎ, কারো কাছে ৬ ভরি
স্বর্ণ আর ৪৮ তোলা রুপা আছে,
তাহলে তাকে দুইটার মূল্য যোগ করে
একসাথে নিসাব হিসাব করে
যাকাত দিতে হবেনা। কারণ, দুইটার
নিসাব আলাদা, তাদের হিসাবও
আলাদা হবে।
(৪) মেয়ে বা মা, বোনদের যদি
মালিক করে গয়না উপহার দেওয়া হয়,
তাহলে তাদের প্রত্যেকের হিসাব
আলাদা হবে। যেমন ধরুন, ৩ বোনের
মিলে ৭.৫ ভরি বা তার বেশি ১০/১৫
ভরি স্বর্ণ হয়, কিন্তু এককভাবে
কারোরই যদি ৭.৫ ভরি স্বর্ণ না হয়,
তাহলে কাউকেই যাকাত দিতে
হবেনা। তবে, কেউ যদি নিজের
মেয়েদের স্থায়ী মালিক না করে,
গয়নাগুলো শুধু ব্যবহার করতে দেয়,
তাহলে সবগুলো মিলিয়ে ৭.৫ ভরি
বা তার বেশি হলে তার সম্পূর্ণটার
উপরে তাকে যাকাত দিতে হবে।
(৫) নারীরা যেই গহনাগুলো ব্যবহার
করেন, সেইগুলোর উপরেও যাকাত
দিতে হবে।
____________________________________

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s